x

এই মৌসুমে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সে খেলার প্রস্তাব পেয়েই শর্তটা জুড়ে দিয়েছিলেন নাসির হোসেন শর্ত মানলে তিনি সে দলে খেলবেন নয়তো নাকি ন্তু কী ছিল সেই শর্ত? সাত ম্যাচ খেলে দুই সেঞ্চুরি আর তিন ফিফটিসহ করেছেন ৪৭৭ রান
এর ছয় ইনিংসেই অপরাজিত থাকায় গড় ৪৭৭এবারের প্রিমিয়ার লিগে নিজের চমক জাগানো ব্যাটিংয়ের ব্যাখ্যা দিতে গিয়েই শর্তের কথাটা বলেন নাসির, ‘গাজী ট্যাংকের সঙ্গে চুক্তি করার সময় আমি কোচ সালাউদ্দিন স্যারকে বলেছিলাম, স্যার, গাজী দলে খেলতে পারি এক শর্তে আমাকে চার নম্বরে ব্যাট করতে দিতে হবে নইলে আমি খেলব নাস্যার তাতে রাজি হলেন’
আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নাসির মানেই বলের সঙ্গে লড়াইয়ে রানের জয়জাতীয় দলে সাত-আটে
ব্যাট করে তাই ‘ফিনিশার’ নাম কুড়িয়েছেন কিন্তু সেই শিহরণ জাগানো ব্যাটিং ছেড়ে হঠাৎ কেন চারে চলে আসতে চাইলেন নাসির ? উত্তরটা তাঁর মুখেই শুনুন, ‘এর আগে পাঁচ-ছয়ে ব্যাটিং করে প্রিমিয়ার লিগের অনেক ম্যাচে ব্যাটিংই পাইনি
অনেক ম্যাচে সাত-আটেও খেলেছি আমি নামার আগেই দল জিতে যায় বা খেলা শেষ হয়ে যায়আর ওই জায়গায় নেমে বড় ইনিংস খেলার সুযোগও থাকে নাসে জন্যই এবার আগে থেকে ঠিক করেছি চারে খেলব’
লোয়ার মিডল অর্ডারে নেমে লম্বা সময় ব্যাটিংয়ের সুযোগ বেশির ভাগ সময়ই থাকে না গতবারের প্রিমিয়ার লিগটাও তাই নাসিরকে কাটাতে হয়েছে অতৃপ্তি নিয়ে চারে ব্যাটিং করায় এবার সেই অতৃপ্তি দূর হয়ে গেছে অনেকটাই, ‘গতবার আমার রানের গড় ছিল ৭৫-এর মতোচার-পাঁচ ম্যাচে অপরাজিত ছিলা মতিন-চারটিতে ব্যাটিং করারই সুযোগ পাইনি
এক শ মারতে পারিনি, ৯৭ ছিল সর্বোচ্চ ইনিংসঅথচ চারে নেমে এবার দুটো সেঞ্চুরি করেছি, কয়েকটা ফিফটি করেছি’ এত চমৎকার পারফর ম্যান্সের পরও নাসিরের একটি লক্ষ্য নাকি অপূর্ণই থেকে যাচ্ছে লক্ষ্য ছিল এবারের লিগে সর্বোচ্চ রান করবেন
অন্তত ৯০০ রান করার স্বপ্ন ছিল তাঁর কিন্তু মাঝে ইংল্যান্ড-আয়ারল্যান্ড সফরে যাওয়ায় খেলতে পারেননি লিগের সব ম্যাচকরা হচ্ছে না সর্বোচ্চ রান ওতবে সাত ম্যাচে যা পেয়েছেন নাসির তাতেই সন্তুষ্ট এখন চাওয়া একটাই—গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের শিরোপা জয় চার নম্বর ব্যাটসম্যান নাসির হোসেনের সাফল্যের সবচেয়ে বড় স্মারক হবে সেটিই ।
তথ্যসূত্রঃ অনলাইন